ব্রেকিং ❯
প্রচ্ছদ / সারাদেশ / বিস্তারিত

For Advertisement

সুপার সাইক্লোন সিডরের ১৫ বছর নির্মাণাধীন বেড়িবাঁধ স্থায়িত্ব নিয়ে শঙ্কা

১৪ নভেম্বর ২০২২, ৪:৫৪:৪৯

আ. মালেক রেজা, শরণখোলা (বাগেরহাট):
২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর দেশের দক্ষিণা লীয় উপকূলে আঘাত হেনেছিলো সুপার সাইক্লোন সিডর। কেড়ে নিয়েছিল হাজার হাজার মানুষ ও পশু পাখির প্রাণ। নষ্ট হয়েছে হাজার হাজার হেক্টর ফসলের জমি, ক্ষতি হয়েছে গাছপালার। বিধ্বস্ত হয়েছে ঘরবাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ নানা স্থাপনা। মৃত্যু ভাসিয়ে নিয়েছে আপনজনদের।

সিডরের ১৫ বছর পরে টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মান হলেও নদী শাসণ ব্যবস্থা না থাকায় তার স্থায়িত্ব নিয়ে উপকুল বাসীর মধ্যে শংকা রয়েছে। জীবনযাত্রার মান কিছুটা স্বাভাবিক হলেও আতঙ্ক কাটেনি সিডর বিধ্বস্ত উপকূলীয় এলাকার মানুষের। ঘুর্ণিঝড় সিডরে বিধ্বস্ত এলাকাবাসির দাবীর প্রেক্ষিতে ২০১৬ সালের ২৬ জানুয়ারী বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে ৩৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৬৩ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মানের কাজ শুরু করে পানি উন্নয়ন বোর্ড। ইতিমধ্যে টেকসই বেড়িবাঁধের শতভাগ কাজ শেষে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছে হস্তান্তরের অপেক্ষা। তবুও আতংক কাটছেনা এলাকাবাসীর। ২০২০ সালের ৮ ও ৯মে দুই দিনের আকস্মিক ভাংঙ্গনের ফলে বাগেরহাটের শরণখোলার সাউথখালী ইউনিয়নের গাবতলা ও বগী গ্রাম সংলগ্ন ৩৫/১ পোল্ডার সংলগ্ন এলাকার প্রায় ৫বিঘা জমি নদীর গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এছাড়া ২০২০ সালের ১৯ মে রাতে সাউথখালী ইউনিয়নের বগী থেকে গাবতলা পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার নির্মানাধীন বেড়িবাধ ভেঙ্গে লোকালয় প্লাবিত হয়। ওই সময়ে সেনাবাহিনীকে ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় বাঁধ নির্মানের দায়িত্ব প্রদান করা হলে ২০২০ সালের ১৬ জুন সাউথখালী ইউনিয়নের ভাঙ্গন কবলিত অধিক ঝুকিপূর্ণ বগী থেকে গাবতলা পর্যন্ত আট কোটি টাকা ব্যয়ে তিনটি প্যাকেজে ১হাজার ৭‘শ মিটার রিং বাঁধ নির্মান করে সেনাবহিনী। ২০২২ সালের ১১ এপ্রিল বুধবার গাবতলা এলাকার আশার আলো মসজিদ সংলগ্ন এলাকার মূল বাঁধে প্রায় ২০ ফুট দীর্ঘ এক ফাঁটল দেখা গেছে। পাশাপাশি গাবতলা এলাকার বাসিন্দা সবেদ আলী খাঁনের গাছপালা সহ প্রায় এক বিঘা জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

দক্ষিণ সাউথখালী গ্রামের ইউপি সদস্য মো. জাকির হাওলাদার বলেন, উপজেলার সাউথখালী বাসীর প্রানের দাবী ছিল টেকসই বেড়িবাঁধ। বাঁধ নির্মানে সরকার প্রচুর বরাদ্ধ দিলেও একটি স্বার্থান্বেষী মহলের কারসাজিতে বাধেঁ মাটির পরিবর্তে বালুর ব্যবহার ও নদী শাসন না করে বাঁধ নির্মাণ করায় এ বাঁধে প্রতিনিয়ত ফাঁটল ও বাঁধ পাশ^বর্তী এলাকায় ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। এতে বাঁধের অস্তিত্ব নিয়েও শংশয় প্রকাশ করেন এ জন প্রতিনিধি।

পানি উন্য়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাসুম বিল্লাহ বলেন, নদী শাসন ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য ইতিমধ্যে ডিডিপি আকারে একটি প্রকল্প একনেকে পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন সাপেক্ষে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

For Advertisement

দৈনিক আলোর প্রতিদিন’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: