For Advertisement

পাচঁ শত টাকা ছাড়া পাচ্ছে না প্রশংসা পত্র

১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ৩:৫৬:০৯

নিজেস্ব প্রতিনিধি, রাঙ্গাবালী, পটুয়াখালী৷

পটুয়াখালী রাঙ্গাবালী উপজেলার মৌডুবী ইউনিয়নের মৌডুবী সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে জোর করে ৫০০ টাকা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এবং প্রধান শিক্ষকের টাকা চাওয়ার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পরে সমালোচনার ঝর তুলেছে এলাকায়। ওই বিদ্যালয়ের শির্ক্ষাথীর অভিভাবক ইউনুস হাওলাদার (০৭ই ফেব্রুয়ারি) মঙ্গল বার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে মুঠোফোনে অভিযোগ দিয়েছে।

ভিডিওতে দেখা গেছে, পরিক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা বলে স্যার আমরা জানি সার্টিফিকেট নিতে টাকা লাগে প্রশংসাপত্র নিতে টাকা লাগেনা প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন বলে জানোনা এবার জেনে নাও । শিক্ষার্থীরা বলেন স্যার একটু কমিয়ে নিলে ভাল হতো। স্যার বলে গতবছর নিয়েছি ৫০০ টাকা এই বছর আরো ১০০ বাড়ানো লাগবে তোদের জন্য কত টাকা খরচ করা লাগছে তা তোদের হিসাব আছে? নিজেদের দিকে তাকাও আমাদের ভাগের টাকা দিবানা ।
জানা গেছে, এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর থেকে চলমান সময় পর্যন্ত -ই মৌডুবী সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা প্রশংসাপত্র আনতে গেলে তাদেরকে জানিয়ে দেওয়া হয় প্রতি জনকে প্রশংসাপত্র বাবদ পাঁচশত টাকা নিয়ে আসতে হবে। বাধ্য হয়ে ওই শিক্ষার্থীরা পাঁচশত টাকা দিয়ে প্রশংসাপত্র নিচ্ছে। উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা প্রশংসাপত্র ছাড়া উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে না। এই সুযোগে তাদের কে জিম্মি করে বাড়তি টাকা নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে একাধিক শিক্ষার্থীরা ও অভিভাবকরা ।
উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী মোঃ অমিত হাসান, বলেন, আমিও আমার বড় ভাইসহ প্রশংসাপত্র আনতে স্কুলে গেলে স্কুলে প্রধান শিক্ষককে স্কুলে না পেয়ে সহকারি প্রধান শিক্ষক আইজুদ্দিন স্যারের কাছে কাছে গেলে সে আমার কাছে ৫০০ শতটাকা দাবি করে আমি ২০০ শত টাকা দিলে আমার টাকা ফিরিয়ে দিয়ে আমার প্রশংসা পত্র রেখে দেয়। তখন আমার ভাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকতার কাছে জানালে আমার প্রশংসাপত্র আমাকে দেয়।
শিক্ষার্থীরা জানান, মৌডুবী সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে ২০২২ সালে এসএসসি পাস করেছি। এইচ এসসি (উচ্চ মাধ্যমিক) ভর্তি হওয়ার জন্য জন্য বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে প্রশংসাপত্র চাইতে গেলে আমাদের কাছে ৫০০ টাকা লাগবে বলেন দাবী করেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন স্যার। আমাদের কাছে তার ভিডিও আছে।
মৌডুবী সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককের কাছে প্রশংসাপত্রের জন্য ৫০০ টাকা আদায় ও তার দুর্নীতি ও অনিয়মের ভিডিও ভাইরাল সর্ম্পকে জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন মুঠোফোনে বলেন,আমি কোন টাকা নেই না।আমার বিরুদ্ধে কেডা কুম্মে দিয়া ভিডিও করে আমার মানহানী করতেছে জানিনা।এই কথা বলে ফোন কেটে দেন
উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার অনাদি কুমার বাহাদুর মুঠোফোনে বলেন,আমি খুলনা আসছি। আমাকে একজন সাংবাদিক ফোন দিছিলো।আপনি মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের সাথে কথা বলেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালেক মুহিদ বলেন, আমার কাছেও অভিযোগ এসেছে । আমি প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বলবো৷

For Advertisement

দৈনিক আলোর প্রতিদিন’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: